এবার ওবায়দুল কাদেরের দূর্নীতি প্রকাশ করায় বিশ্লেষণধর্মী ওয়েবসাইট বন্ধ করল সরকার!

এবার বাংলাদেশের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের দুর্নীতির অভিযোগ এনে একটি প্রতিবেদন প্রকাশের পরে সুইডেন ভিত্তিক তদন্তকারী একটি সাংবাদ মাধ্যম বন্ধ করে দিয়েছে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ। ঐ প্রতিবেদনটি প্রকাশের ১ ঘন্টার মধ্যেই ওয়েবসাইটটি বাংলাদেশে থেকে ব্লক করে দেয় বলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম আল- জাজিরা।

একটি অনলাইন পোর্টালের সম্পাদক বলেছেন, ভিপিএন ব্যবহার না করেই পাঠকরা ওয়েবসাইট প্রবেশ করতে পারছেননা বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশের পাঠকরা। দেশের ওয়েব অ্যাক্সেস নিয়ন্ত্রণকারী সরকারী সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান জহুরুল হক আল জাজিরাকে জানিয়েছে যে ওয়েবসাইটটি ব্লক করতে তিনি সরকারের কাছ থেকে কোনও অফিসিয়াল অর্ডার পাননি। তিনি বলেছেন, যে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর গোয়েন্দা সংস্থা – ডিরেক্টরস জেনারেল অফ ফোর্সেস ইন্টেলিজেন্সেরেও ওয়েবসাইট ব্লক করার ক্ষমতা রয়েছে।

তবে তিনি ডিজিএফআই বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানায়।

জানা যায়, ২৬ ডিসেম্বর ‘বিলাসবহুলের কব্জি’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদন করা হয়। ঐ প্রতিবেদনে মন্ত্রী কীভাবে এই ব্যয়বহুল জিনিসপত্র বহন করতে পারবেন তা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়।

নেত্রা নিউজের সম্পাদক-ইন-চিফ তাসনিম খলিল আল জাজিরাকে বলেছেন যে কাদেরের বার্ষিক আয় প্রায় ৩৬ হাজার ডলার এবং তার একটি রোলেক্স ঘড়ির মূল্য ৩৪ হাজার ডলার রয়েছে। আমরা জিজ্ঞাসা করেছি যে মন্ত্রী এই ঘড়িগুলি চুক্তির বিনিময়ে দেওয়ার  হয়েছে না তিনি নিজেই কিনেছিলেন বা উপহার হিসাবে পেয়েছেন কিনা। এই প্রতিবেদন প্রকাশের পর ওয়েবসাইটটি ব্লক করা হয়েছে বলে জানান ঐ অনলাইন পোর্টালটির সম্পাদক।

আল জাজিরার পক্ষ থেকে কাদেরের সাথে কয়েকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি না বলে জানিয়েছে তার সচিব।

আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুবুল আলম হানিফ বলেছেন, কাদেরের ঘড়ির সংগ্রহ সম্পর্কে আমি জানিনা। কাদেরের কব্জি দেখাশোনা করা দায়িত্ব আমার না বলে মন্তব্য করেন তিনি। এছাড়া ওয়েবসাইটটির ব্লকের পেছনে কোনও কারণ জানাতে রাজি হননি আওয়ামী লীগের এই মুখপাত্র

এর আগে আওয়ামী লীগ সরকারের যৌক্তিক সমালোচনা ও সত্য প্রকাশ করায় প্রধান বিরোধী দলের পোর্টালসহ ৫৪টি নিউজ পোর্টাল এবং ওয়েবসাইট বন্ধ করে দেয়া হয়। ২০১৯ সালের মার্চ মাসে আল জাজিরার ওয়েবসাইটে তিনজন ব্যক্তির গুমের সাথে বাংলাদেশের সবচেয়ে সিনিয়র নিরাপত্তা ও প্রতিরক্ষা ব্যক্তিত্বের সম্পৃক্ততা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকারে পর বন্ধ করে দেওয়া হয়। আল জাজিরার ঐ একই প্রতিবেদনের অনুবাদ প্রচার করায় বন্ধ করে দেয়া হয় নিউজ বিশ্লেষণধর্মী ওয়েবসাইট ‘জবান’। এছাড়া মোস্তফা জব্বারকে নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করায় বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় নিউজ পোর্টাল বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশ সরকার।

Comments

comments