আ.লীগ অফিস থেকে বিএনপির প্রার্থীর ওপর অতর্কিত হামলা, আহত ৮

রাজধানীর উত্তর সিটির ১নং ওয়ার্ড বিএনপির মনোনিত প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান সেগুনের ওপর হামলার হয়েছে। এই হমলা হয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী আফসার উদ্দিন খানের নির্বাচনি অফিস থেকে। এতে প্রার্থীসহ ৮ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় চারজনকে উত্তরার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আহতরা হলেন স্থানীয় যুবদলের বকুল হোসেন, ঢাকা উত্তর ছাত্রদলের সদস্য রাজন মুহাম্মদ রাজ, ছাত্রদলের সদস্য রবিউল আউয়াল ভূঁইয়া, সাইফুল ইসলাম সাইফ ও সোহেব আহমদসহ আরো অন্তত চারজন।

ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া প্রার্থীর মাথায় ও হাতে লাঠি দিয়ে আঘাত করা হয়েছে।

জানা যায়, বিএনপি মনোনিত প্রার্থী বুধবার বিকেলে আবদুল্লাহপুর খন্দকার সিএনজি পাম্প থেকে প্রচারণা শুরু করে বেড়িবাঁধের ঢাল দিয়ে উত্তরা ৯নং সেক্টরের শেষ মাথায় দিকে যাচ্ছিলেন। এসময় পাশেই ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী আফসার উদ্দিন খানের নির্বাচনি অফিস থেকে ৫০-৬০ জনের একটি দল হাতে লাঠি, রড ও হকিস্টিক দিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর করতে থাকে। এক পর্যায়ের বেড়িবাঁধ রোডের উপর দিয়ে ছাত্রদলের চারজনকে মারতে মারতে ১ কিলোমিটার দূরে আব্দুল্লাহপুর পুলিশ বক্সের কাছ পর্যন্ত নিয়ে যায়।

মোস্তাফিজুর রহমান সেগুন বলেন, ‘আমার প্রতিপক্ষ সরকার দলীয় প্রার্থীর ৫০-৬০ জনের একটি দল আমাদের এলোপাতাড়ি মারধর করতে থাকে। এ সময় আমাকেও লাঠি দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। আর আমার প্রচার দলে থাকা সবাই কমবেশি মার খেয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, সবচেয়ে অমানবিক বিষয় হচ্ছে, ছাত্রদলের চারজন কর্মীকে প্রকাশ্যে মারধর করতে করতে এক কিলোমিটার পর্যন্ত নিয়ে যায়। পরে তারা অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পড়ে গেলে তাদের ছেড়ে দেয়। এসময় আমাকে নির্বাচনি প্রচারণা চালাতে নিষেধ করা হয়।’

Comments

comments