সিলেটে মাওলানা আজহারীর ওয়াজ নিষিদ্ধ করল প্রশাসন

সময়ের আলোচিত বক্তা মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীর সব ওয়াজ মাহফিল নিষিদ্ধ করেছে সিলেট জেলা প্রশাসন। বুধবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এমন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেয়া হয়।

আগামী ২০ জানুয়ারি সিলেট কানাইঘাটের মুকিগঞ্জ বাজার জামেয়া মাঠে অনুষ্ঠিতব্য তাফসিরুল কোরআন মাহফিলে আজহারীকে প্রধান অতিথি করার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হলে প্রশাসন কানাইঘাটে আজহারীর আগমন স্থগিত করে দেয়।

ওই দিন দরবস্তের হাজারী সেনাগ্রাম মাঠ, ওসমানীনগরসহ ৩টি মাহফিলে বয়ান করার কথা ছিল মাওলানা আজহারীর।

এমন খবরে কানাইঘাট ও জৈন্তাপুর উপজেলায় চাপা উত্তেজনা দেখা দিলে বুধবার বৈঠক ডেকে আজহারীর আগমন স্থগিত করে দেয় প্রশাসন।

বুধবার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে মিজানুর রহমান আজহারীর বিভিন্ন ওয়াজ নিয়ে আলোচনা করা হয়।

এরপর প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়, সিলেটে আজহারীর অনুষ্ঠিতব্য সব মাহফিলে তিনি উপস্থিত থাকতে পারবেন না। ভবিষ্যতে তাকে নিয়ে সিলেটে কোনো ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করলে প্রশাসনের অনুমতি নিতে হবে।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের জেলা প্রশাসক কাজী এমদাদুল ইসলাম, সিলেটের পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন, জৈন্তাপুর ও কানাইঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সংশ্লিষ্ট থানার ওসি, দারুল উলুম কানাইঘাট মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা আলীম উদ্দিন দুর্লভপুরী, হরিপুর মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা হিলাল আহমদ, হেমু দারুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা জিল্লুর রহমান, দরবস্ত মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা আবু হানিফ, জৈন্তাপুর লাম্নিগ্রাম মাদ্রাসার মুহতামিম আবদুল জব্বার, হরিপুর মাদ্রাসার শায়খুল হাদিছ মাওলানা নজরুল ইসলাম, জৈন্তাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল আহমদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলা উদ্দিন, যুগ্ম-সম্পাদক ফয়েজ আহমদ বাবর, উপ-দফতর সম্পাদক জাকারিয়া মাহমুদ, কানাইঘাট উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ শাকের, কানাইঘাট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, চতুল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন, ব্যবসায়ী ফারুক আহমদ।

কানাইঘাটের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ বারিউল করিম বলেন, আজহারীর ব্যাপারে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হলে এই বৈঠক ডাকা হয়। বৈঠকে আজহারীর সিলেট আগমন স্থগিত করা হয়।

 

Comments

comments