ল্যাব এইড ও কনকর্ডের মালিক সমিতির মধ্যে সংঘর্ষ

রাজধানীর ধানমন্ডিতে ল্যাবএইড হাসপাতাল কর্মী ও কনকর্ড আর্কেডিয়া শপিং মল মালিক সমিতির সদস্যদের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১২ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে ধানমন্ডির সায়েন্স ল্যাব এলাকায় হাসপাতাল কর্মী ও শপিং মলের দোকান মালিকদের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় ব্যস্ত সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে ব্যাপক যানজট ও জন দুর্ভোগ তৈরি হয়। এ ঘটনায় তিনটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

আহতদের মধ্যে মাথায় গুরুতর আঘাত পাওয়া ল্যাবএইড হাসপাতালের প্রধান নিরাপত্তাকর্মী মো. নাসির উদ্দিন তাজ ওই হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন আছেন।

ল্যাব এইডের জনসংযোগ কর্মকর্তা চৌধুরী মেহের-এ-খুদা দীপ জানান, কনকর্ড আর্কেডিয়ার তৃতীয় ও চতুর্থ তলায় ৪-৫টি দোকান কিনেছিল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। দোকানগুলোতে রং করার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তিন শ্রমিককে পাঠায়। কিন্তু মালিক সমিতির সভাপতি সানাউল হক মীর এবং সাধারণ সম্পাদক মোক্তার হোসেইন শ্রমিকদের কাজ করতে বাধা দিয়ে চড়-থাপ্পড় মেরে সেখান থেকে বের করে দেন।

তিনি বলেন, শ্রমিকরা ফিরে এসে ঘটনা জানালে হাসপাতালের নিরাপত্তা প্রধানসহ তিন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সার্বিক অবস্থা দেখতে মার্কেটে যান। সেখানে মার্কেট সমিতির ১৫-২০ জন লাঠি নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

দীপ দাবি করেন, শ্রমিকদের মারধরের ব্যাপারে হাসপাতাল কর্মকর্তারা জানতে চাইলে, মার্কেট সমিতির সদস্যরা তাদের আটকে রেখে হামলা চালান। এ সময় সমিতির সভাপতি সানাউল হক পিস্তল বের করে তাজের দিকে গুলি করেন। তবে অল্পের জন্য তিনি বেঁচে যান। সমিতির সদস্যরা ইটপাটকেল ছোড়েন এবং হাসপাতালের ক্যাফেটেরিয়ায় ভাঙচুর চালান। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে, ধানমন্ডি জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার হাসিন উজ জামান বলেন, ‘আমরা অস্ত্র পরীক্ষা করেছি, সানাউলের অস্ত্রের লাইসেন্স রয়েছে।

মালিক সমিতির নির্বাহী সদস্য ড. শামসুল আলম জানান, মার্কেটে ল্যাবএইড অনেকগুলো দোকান নিলেও কোনো সার্ভিস চার্জ দেয়নি। যথাযথ আবেদনের মাধ্যমে দোকান খোলার কথা বলা হলে, তারা সেটি করতে রাজি হয়নি এবং জোর করে দোকান খোলার চেষ্টা করে। এরপরই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে যাতে ছয়জন নিরাপত্তাকর্মী এবং সমিতির সদস্য আহত হন বলে জানান শামসুল আলম। আত্মরক্ষার জন্য সমিতি সভাপতি গুলি চালান বলে দাবি করেন তিনি।

ধানমন্ডি জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার আব্দুল্লাহিল কাফী সংঘর্ষের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় দুই পক্ষের চারজনকে আটক করা হয়েছে।

Comments

comments