ওয়াসার গাড়ি থেকে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে ধরা খেলেন দুই ছাত্রলীগ কর্মী

রাজধানীর হাইকোর্ট মোড় এলাকায় ওয়াসার বালুর ট্রাক থেকে চাঁদা আদায় করার সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার ছাত্রলীগের দুই কর্মীকে হাতেনাতে আটক করেছে শাহবাগ থানা পুলিশ।

শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) ভোর সাড়ে ৪টায় হাইকোর্ট মোড়ের পানির পাম্পের সামনে থেকে দুজনকে আটক করে শাহবাগ থানায় নেয়া হয়।

এ দুজন হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইন্সটিটিউটের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মো. আল আমিন ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের একই বর্ষের জুবায়ের আহমেদ শান্ত। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হলের আবাসিক ছাত্র।

সূত্রে জানা গেছে, মো. আল আমিন ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাসের অনুসারী, আর শান্ত ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়ের অনুসারী।

দুজনকে আটক করার পর তাদের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় মামলা দায়ের করেন ট্রাকের সুপারভাইজার মো. সোহেল রানা। মামলার নম্বর ৩৩।

ট্রাকের চালক মো. কাইসার বলেন, শনিবার ভোর সাড়ে ৪টায় ট্রাকে করে ঢাকা ওয়াসার বালু নিয়ে দয়াগঞ্জ থেকে শাহবাগ আসছিলাম। হাইকোর্ট মোড়ে আসার পর গাড়ির চাকা পাংচার হয়ে গেলে রাস্তার এক পাশে পার্কিং করে রাখি। এমন সময় দুইজন এসে গাড়ির কাগজপত্র দেখতে চায় এবং দশ হাজার টাকা দাবি করে। টাকা নাই বলতেই আমাকে চড়-থাপ্পড় মারতে শুরু করে। পরবর্তীতে আমার কাছ থেকে নম্বর নিয়ে গাড়ির সুপারভাইজারকে আসতে বলে।

সুপারভাইজার মো. সোহেল রানা বলেন, বালুর গাড়ি আটক করা হয়েছে এমন খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে যাই। যাওয়ার সাথে সাথে আমাকে মারধর করে তারা। একপর্যায়ে মোবাইল কেড়ে নিয়ে জোরপূর্বক আমার রকেট থেকে ১৯৫০ টাকা নিয়ে যায় এবং সাথে সাথে মেসেজ ডিলেট করে দেয়। পরে টহলরত পুলিশ এসে আমাদের উদ্ধার করে।

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল হাসান বলেন, দুজনের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় মামলা দায়েরের পর তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি এখন তদন্তাধীন রয়েছে।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশকে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দুজনের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে

Comments

comments