আ. লীগ নেতাকে চাঁদা না দেয়ায় করোনা হাসপাতালের কাজ বন্ধ: ডা. জাফরুল্লাহ

রাজধানীর তেজগাঁও শিল্প এলাকায় নিজস্ব জমিতে ৩০১ শয্যা বিশিষ্ট করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য হাসপাতাল নির্মাণ করছিল দেশের বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠান আকিজ গ্রুপ। তবে সেই হাসপাতাল নির্মাণের কাজ বন্ধ করে দেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবং তেজগাঁও থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিউল্লাহ শফির নেতৃত্বে লোকজন।

শনিবার (২৮ মার্চ) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শিল্প এলাকার ১৮৪ নম্বর প্লটে নির্মাণাধীন হাসপাতালের লোকজন আসার পর সেখানে এসে চাঁদা দাবি করে আওয়ামী সভাপতি ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা। পরে চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় তাদের কাজ বন্ধ করে দেয়। এ সময় তাদের বাধার মুখে হাসপাতালের জন্য সামগ্রী আনা ট্রাক আর ভেতরে ঢুকতে পারেনি।

অভিযোগ উঠেছে, চাঁদা না দেয়ায় নির্মাণকাজ বন্ধ করে দিয়েছেন শফি। শনিবার রাতে কাছে এমন অভিযোগ করেন এ হাসপাতাল নির্মাণের অন্যতম উদ্যোক্তা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তার অভিযোগ, ‘শফি সাহেবকে পয়সা দিই নাই। টাকা না দেয়া ছাড়া আর কী কারণ থাকতে পারে? এসব কেন করে ওরা? কাউন্সিলর একটা ভালো কাজে বাধা দিল কেন? সব জায়গায় কোনো কন্সট্রাকশন করতে হলে এলাকার মাস্তানকে পয়সা দিতে হয়, আমরা কোনোটাই দিই নাই।’

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘এছাড়া সরকারকে ক্ষতি করতাছে এই কাউন্সিলরের লোকজন। এই কাউন্সিলর লোকজন নিয়া আইসা, আমরা হাসপাতাল বানাব, হামলা কইরা লোকজনকে আহত কইরা চইলা গেছে। তারা বলছে, এখানে কোনো করোনার হাসপাতাল বানানো যাবে না। তাদের হামলায় প্রায় ৩০ জনের মতো আহত হয়েছে। তারা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অনেকে বাড়ি চলে গেছে ভয়ে। কেউ কাজ করবে না।’

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘এটা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এলাকা। আমরা বইসা আছি। উনারা কী করেন? উনারা যদি স্বপ্রণোদিত হয়ে শফির কোনো ব্যবস্থা করেন, তবে আমরা হাসপাতাল করব, নইলে করব না। আমি তো সরকারের কাজটাকে এগিয়ে দিচ্ছিলাম।’

Comments

comments