সাতক্ষীরায় করোনার উপসর্গ নিয়ে সাংবাদিকসহ পাঁচজনের মৃত্যু

সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় বুধবার জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে এক স্থানীয় সংবাদকর্মী মারা গেছেন। স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে মৃত ব্যক্তি ও পরিবারের দুজনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরীক্ষার প্রতিবেদন না আসা পর্যন্ত বাড়ির সবাইকে কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে।

এদিকে একই উপজেলায় এক ব্যাক্তির নমুনা পরীক্ষায় করোনা ধরা পড়েছে বলে সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন অফিস জানিয়েছে।

এ নিয়ে সাতক্ষীরায় জ্বর সর্দির উপসর্গ নিয়ে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে মৃত তিনজনসহ তাদের পরিবারের লোকজনের করোনা পরীক্ষার প্রতিবেদনে নেগেটিভ এসেছে।

বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন অফিসের মুখপাত্র জয়ন্ত সরকার বলেন, বর্তমানে জেলার সকল করোনা সন্দেহজনিত নমুনা পাঠানো হয়ে থাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। বৃহস্পতিবার রাতে সেখান থেকে সাতক্ষীরা স্বাস্থ্য বিভাগে পাঠানো জরুরী বার্তায় জানানো হয়েছে সাতক্ষীরার তালার এক ব্যক্তির নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজেটিভ রয়েছে। তাকে কোয়ারেন্টাইন থেকে এখন আরও দ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্য স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে।

সাতক্ষীরার ৩৪২ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকার রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৮৯ জনের নমুনা পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়া গেছে। সব কটি প্রতিবেদন নেগেটিভ এসেছে।

মৃত ব্যক্তির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত একটি পত্রিকার তালা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতেন। কিছুদিন ধরে তিনি জন্ডিসে ভুগছিলেন। স্থানীয়ভাবে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছিলেন।

তালা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা রাজীব সরদার বলেন, গত মঙ্গলবার দুপুরের পর ওই ব্যক্তি তালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন জ্বর, সর্দি, কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে। তিনি জন্ডিস বা অন্য কোনো রোগে ভুগছিলেন এমন তথ্য তাদের জানাননি। তাকে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে রাত ১০টার দিকে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে যেতে পরামর্শ দেওয়া হয়। কিন্তু তিনি সাতক্ষীরায় না গিয়ে স্থানীয় এক কবিরাজের কাছে চিকিৎসার জন্য যান। সেখান থেকে বাড়ি ফিরে তিনি মারা যান।

এই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, মৃত ব্যক্তিসহ তিনজনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পাশাপাশি বাড়িতে লাল পতাকা টাঙিয়ে দিয়ে কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে। বিশেষ ব্যবস্থায় তার দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

Comments

comments