রাজধানীতে চাঁদার দাবিতে বাসায় ঢুকে বাবা ছেলেকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করলো ছাত্রলীগ

রাজধানীতে চাঁদার দাবিতে বাড়িতে প্রবেশ করে হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ সময় সন্ত্রাসীরা পরিবারের সদস্যদের পিটিয়ে রক্তাক্ত করে।

গত মঙ্গলবার রাজধানীর উত্তরায় একটি বাড়িতে এ ঘটানা ঘটে। ঘটার দুইদিন গড়িয়ে গেলেও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কোন তৎপরতা পাওয়া যায়নি।

জানা যায়, ছাত্রলীগের নেতারা ভাড়াটিয়াদের থেকে ময়লা বিলের নামে ১০০ টাকা করে চাঁদার দাবি জানালে বাড়ির মালিক তাদেরকে বাধা দেয়। পরে ছাত্রলীগ নেতা কামাল, শরিফ, দিপু,নাবিল,দিপুসহ স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতারা ইফতারির পরে এসে তার বাসায় হামলা চালায় এবং বাড়ির মালিক ও তার ছেলেকে ছুরি দিয়ে জখম করে।

বাড়িওয়ালার ছেলে জানান, ‘আমাদের বাসার অধিকাংশ ভাড়াটিয়া নিম্ন আয়ের। আমরা সাধারণ দিন গুলোতেও এদের ভাড়ার জন্য চাপ দেই না। যে যখন পারে সুবিধা মতো বাসাভাড়া দিয়ে থাকে। আর এখন করনার মতো এক মহামারীর সময় অনেকে কর্মহীন। এই মুহূর্তে ওদের জন্য ১০০ টাকাটাও একটা বড় অঙ্ক। রুম প্রতি ১০০টাকা। সন্ত্রাসী দিপু বাসায় এসে আমাদের সাথে কথা না বলে ভাড়াটিয়াদের বলে গেছে ওদের ময়লার গাড়িতে ময়লা ফেললে টাকা দিতে হবে না ফেললেও টাকা দিতে হবে। এভাবেই জোর করে মানুষের কাছ থেকে ও চাঁদাবাজি করে থাকে।’

তিনি বলেন, ‘ওরা ময়লা না নিয়েই বাসায় এসে ভাড়াটিয়াদের নিকট চাঁদা দাবি করে। তখন আমার আব্বু প্রতিবাদ করে বিধায় ওরা আমার আব্বুর গাঁয়ে হাত তোলে। ওদের কথিত ময়লা কর্মী সন্ত্রাসী কামাল। আমাদের এলাকায় আগে থেকেই কামালের অনেক সন্ত্রাসী কাজকর্মের রেকর্ড আছে।’

‘টাকা নেয়ার জন্য ওরা প্রায় ৪০ জন আসে। আব্বু যখন দরজা লাগিয়ে কামালকে বেধে রেখে প্রশাসনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করতে চাচ্ছিল তখনই সন্ত্রাসী দিপুর নেতৃত্বে দিপুর ভাই, নাবিল, নাবিলের মামা (গ্রামে খুনের মামলার আসামি) সহ অনেকে এসে হামলা করে।’

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ময়লা কর্মী কামালের অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ। দীর্ঘদিন ধরে ময়লা কর্মী কামাল এলাকায় ময়লা বিলের নামে চাঁদা উঠিয়ে আসছে। এর আগে কামাল ছিলো একজন বড় সন্ত্রাসী। কয়েকটি খুনের মামলাও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এলাকায় বেশ কিছুদিন ধরে বিভিন্ন নামে চাঁদা তুলে আসছে কামাল ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা। এছাড়া ধর্ষণেরও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ নেয়নি আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।

Comments

comments