ফেনসিডিল হোম ডেলিভারি, ৪১২ বোতলসহ দুজন গ্রেফতার

বাসার গাড়ি পার্কিংয়ের স্থানে পাশাপাশি দুটো প্রাইভেটকার। পুলিশসদস্যরা সেখানে তল্লাশি করতে গেলে একটি গাড়ির চালক পালিয়ে যান। পরে দুটি গাড়িতে পাওয়া যায় ৪১২ বোতল ফেনসিডিল। এ সময় দুজনকে গ্রেফতার করা হয়। সোমবার রাতের এ ঘটনা সিলেট নগরের শাহপরান থানার বহর এলাকায়।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে শাহপরান থানায় মাদক আইনে মামলা হয়েছে। গ্রেফতার হওয়া জালাল আহমদ (৩২) ও মোহাম্মদ কালামকে (৪২) আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। জামালের বিরুদ্ধে ২০১৫ সালের ১০ জুলাই মাদক আইনে আরও একটি মামলা রয়েছে। তাঁর বাড়ি সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার নরসিংহপুর গ্রামে। বর্তমানে তিনি সিলেট নগরের বিমানবন্দর থানা এলাকার নেছারাবাদ আবাসিক এলাকায় বসবাস করেন।

সিলেট মহানগর পুলিশের ‘মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিটি সার্ভিস’-এর সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি টহল দল রাত প্রায় পৌনে তিনটার দিকে শাহপরান থানার বহর এলাকার শিবলু আহমদের বাড়ির সামনে গাড়ি পার্কিংয়ে দুটো প্রাইভেটকার রাখা দেখে তল্লাশি করতে যায়। এ সময় গাড়িচালক সবুজ মিয়া (৪০) পালিয়ে যান। পরে তল্লাশি করে ৪১২ বোতল ফেনসিডিলসহ গাড়িতে থাকা জামাল ও কালামকে আটক করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা দুজন জানান, তাঁরা সিলেটের সীমান্তবর্তী উপজেলা জকিগঞ্জ থেকে ফেনসিডিল নিয়ে সকালে নগরের কাজলশাহ এলাকায় প্রবেশের অপেক্ষায় ছিলেন। করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে ফেনসিডিল দ্বিগুণ দামে ‘হোম ডেলিভারি’ করে বিক্রি করার পরিকল্পনা ছিল তাঁদের। তাঁদের সঙ্গে নগরীর কাজলশাহ এলাকার শাহিন নামে এক ব্যক্তি জড়িত রয়েছেন।

সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) জেদান আল বলেন, উদ্ধার করা ৪১২ বোতল ফেনসিডিলের দাম ছয় লাখ ১৮ হাজার টাকা। ফেনসিডিলের সঙ্গে দুটো প্রাইভেট কার জব্দ করে শাহপরান থানার এসআই মাহবুব আলম মণ্ডল বাদী হয়ে মাদক আইনে মামলা হয়েছে। পলাতক সবুজ ও শাহিন নামের দুজনকে মামলায় আসামি করা হয়েছে। তাঁদের গ্রেফতার করতে অভিযান চলছে।

Comments

comments